বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০২৪ ০৯:০৬:৩৮ এএম
শিরোনাম বয়স হওয়ার পরও বিয়ে করছেন না দেশের ৩৫ শতাংশ পুরুষ        রাশেক রহমান বিশ্বখ্যাত মারকুইস পাম্পের বাংলাদেশের আইনি প্রতিনিধি নিযুক্ত       নেপিয়ার ঘাস খেয়ে এক খামারির ২৭ গরুর মৃত্যু       ঢাকা ছাড়ছেন নগরবাসী       পুলিশ পেশাদারিত্বের সাথে দায়িত্ব পালন করায় দেশে স্থিতিশীল অবস্থা বিরাজ করছে : আইজিপি       শাহরাস্তিতে দরিদ্র শিক্ষার্থীদের মাঝে শিক্ষা সহায়ক উপকরণসহ নগদ অর্থ বিতরণ        ইসরায়েলকে টার্গেট করে ১৭০টি রকেট-ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ!      
জেনে নিন, যে পরিমাণ টাকা থাকলে এ বছর কুরবানি ওয়াজিব হবে
নিজস্ব প্রতিবেদক :
Published : Tuesday, 11 June, 2024
জেনে নিন, যে পরিমাণ টাকা থাকলে এ বছর কুরবানি ওয়াজিব হবে

জেনে নিন, যে পরিমাণ টাকা থাকলে এ বছর কুরবানি ওয়াজিব হবে

ধীরে ধীরে এগিয়ে আসছে মুসলিম উম্মাহর দ্বিতীয় সর্ব বৃহৎ ধর্মীয় উৎসব ঈদুল আযহা।  ইসলামি শরিয়তে কুরবানি একটি গুরুত্বপূর্ণ ইবাদত।  কুরআন ও হাদিসে এর গুরুত্ব অপরিসীম।  আরবি বছরের ১২তম মাস জিলহজের ১০ তারিখ ফজরের পর থেকে ১২ জিলহজ সূর্যাস্ত পর্যন্ত সময়ের মধ্যে কারো কাছে নেসাব পরিমাণ সম্পদ থাকলেই তার ওপর কুরবানি ওয়াজিব।

কিন্তু প্রশ্ন হলো কুরবানির নেসাবের পরিমাণ কীভাবে নির্ধারণ করবেন? 

স্বর্ণের ক্ষেত্রে সাড়ে সাত (৮৭ দশমিক ৪৫ গ্রাম) ভরি, রুপার ক্ষেত্রে সাড়ে ৫২ (৬১২ দশমিক ১৫ গ্রাম) ভরি।  টাকা-পয়সা ও অন্যান্য বস্তুর ক্ষেত্রে নিসাব হলো এর মূল্য সাড়ে ৫২ ভরি রুপার মূল্যের সমপরিমাণ হতে হবে।

সোনা বা রুপা কিংবা টাকা-পয়সা এগুলোর কোনো একটি যদি আলাদাভাবে নেসাব পরিমাণ না থাকে কিন্তু প্রয়োজনের অতিরিক্ত একাধিক বস্তু মিলে সাড়ে ৫২ তোলা রুপার মূল্যের সমপরিমাণ হয়ে যায়, তাহলেও তার ওপর কুরবানি ওয়াজিব।

কত টাকা থাকলে এ বছর কুরবানি ওয়াজিব হবে- তা জানতে হলে আগে রুপার মূল্য জেনে নিন

শনিবার (১ জুন) বাংলাদেশ জুয়েলার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বাজুস) দর অনুযায়ী, সাড়ে ৫২ তোলা ২২ ক্যারেট রুপার দাম হলো ১ লাখ ১০ হাজার ১৮৭ টাকা।  সাড়ে ৫২ তোলা ২১ ক্যারেট রুপার দাম ১ লাখ ৫ হাজার ২৯০ টাকা।  আর ১৮ ক্যারেট রুপা সাড়ে বায়ান্ন তোলার দাম পড়ে প্রায় ৯০ হাজার টাকা।  সনাতন পদ্ধতির রুপা সাড়ে ৫২ ভরির দাম ৬৭ হাজার ৩৩৭ টাকা।

অতএব, কুরবানির দিনগুলোতে কারো কাছে ন্যূনতম হিসাবে যদি সাড়ে ৬৭ হাজার টাকা বা এর সমমূল্যের প্রয়োজনের অতিরিক্ত সম্পদ থাকে, তাকে কোরবানি দিতে হবে। তবে কুরবানি যেহেতু ১০ জিলহজ থেকে ১২ জিলহজ সময়ের মধ্যে ওয়াজিব হয়, সে সময়ের দাম হিসাব করতে হবে।  কারণ ততদিনে রুপার দাম কিছুটা পরিবর্তন হতে পারে।  কুরবানি ওয়াজিব হয় ১০ জিলহজ ফজর থেকে ১২ জিলহজ সূর্যাস্ত পর্যন্ত সময়ের মধ্যে সাড়ে ৫২ ভরি রুপার যে দাম থাকবে, তার ওপর ভিত্তি করে।  (বাদায়েউস সানায়ে: ৪/১৯৬,আলমুহীতুল বুরহানি: ৮/৪৫৫)

কুরবানির দিনের আমলগুলোর মধ্য থেকে পশু কুরবানি করার চেয়ে অন্য কোনও আমল মহান আল্লাহর কাছে বেশি প্রিয় নয়।  কিয়ামতের দিন এই কুরবানিকে তার শিং, পশম ও ক্ষুরসহ উপস্থিত করা হবে।  আর কুরবানির রক্ত জমিনে পড়ার আগেই মহান আল্লাহর কাছে কবুল হয়ে যায়। সুতরাং তোমরা সন্তুষ্টচিত্তে কুরবানি করো।  (তিরমিজি: ১৪৯৩)

আসন্ন এই ঈদুল আযহা ত্যাগের মহিমায় ভাস্বর হয়ে উঠুক।  আর আল্লাহ মুসলিম উম্মাহকে সঠিক নিয়মে কুরবানি করার তাওফিক দান করুন এবং সকলের কুরবানি ও অন্যান্য আমল কবুল করুন, আমিন।


« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »







সর্বশেষ সংবাদ
⇒সর্বশেষ সব খবর...
সর্বাধিক পঠিত
সম্পাদক, প্রকাশক ও মুদ্রাকর: মোহাম্মদ নিজাম উদ্দিন জিটু
সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : প্ল্যানার্স টাওয়ার, ১০তলা, ১৩/এ বীর উত্তম সি আর দত্ত রোড, বাংলামটর, শাহবাগ, ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ।
ফোন: +৮৮-০২-৪১০৬৪১১১, ৪১০৬৪১১২, ৪১০৬৪১১৩, ৪১০৬৪১১৪, ফ্যাক্স: +৮৮-০২-৯৬১১৬০৪,হটলাইন : +৮৮-০১৯২৬৬৬৭০০৩-৪
ই-মেইল : [email protected], [email protected], [email protected], [email protected], web : www.gonokantho.com